টাঙ্গাইলে রূপালী ব্যাংক শাখা

0
510
Rupali Bank Branches in Tangail

টাঙ্গাইলে অবস্থিত রূপালী ব্যাংক শাখা

বাংলাদেশের টাঙ্গাইল জেলায় অবস্থিত রূপালী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেডের মোট ১২টি শাখা রয়েছে। টাঙ্গাইল জেলার সমস্ত রূপালী ব্যাংক শাখা গুলো নিম্নলিখিত বক্সে আপনাকে অবস্থান, টেলিফোন নম্বর, রাউটিং নম্বর, সুইফট কোড এবং অন্যান্য সকল সম্পর্কিত তথ্য সহ যে কোন নির্দিষ্ট শাখার ঠিকানা জানতে সহায়তা করবে।

এছাড়াও নিন্মে শাখার নামগুলির নামে ক্লিক করলে আপনাকে সরাসরি উক্ত শাখার তথ্য দেখাবে। আমরা শাখার নাম গুলোর তালিকাটি ইংরেজি বর্ণানুক্রমিক ভাবে সাজিয়েছি।

Branch Name Address Telephone
Balla Bazar Balla Bazar, Kalihati, Tangail 017 31309371, 017 62617499
Basail Suvechcha Plaza, Main Road, Basail, Tangail 09222 56180, 015 52455082
Elasin Elasin, Delduar, Tangail 017 12529311, 017 32514446
Elenga Elenga Bus Stand, Kalihati, Tangail 017 33273802, 019 93337965, 017 17085451
Ghatail Ghatail, Tangail 09225 56510, 017 16459701
Kalihati Kalihati, Tangail 09227 74008, 017 40853962
Natiapara Natiapara, Tangail 017 15326475, 017 14818933
Pakulla Pakulla, Mirzapur, Tangail 017 12560218, 017 28286162
Pathrail Bazar Pathrail Bazar, Tangail 0921 62685, 017 15161464
Ratanganj Bazar Ratanganj Bazar, Kalihati, Tangail 017 15326474, 017 15110438
Sokhipur Sokhipur, Tangail 0923 256280, 017 16991051
Tangail Tangail Sadar, Tangail 0921 63361, 011 93034295

 



বিঃদ্রঃ শাখা পরিষেবার সময়গুলি পৃথক হতে পারে এবং সংশ্লিষ্ট ব্যাংকের যে কোন কিছু বিজ্ঞপ্তি ছাড়াই পরিবর্তন হতে পারে। উপরে প্রদর্শিত ব্যাংক এবং শাখা সম্পর্কিত সমস্ত তথ্য সংশ্লিষ্ট ব্যাংকের ওয়েবসাইট বা প্রোফাইল থেকে সংগ্রহ করা হয়। এই পৃষ্ঠায় কোনও ভুল বা অসম্পূর্ণ শাখার তথ্য পাওয়া গেলে অল ব্যাংক বিডি দায়ী নয়। যদি কোনও ভুল তথ্য পাওয়া যায় তবে দয়া করে আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন যাতে আমরা খুব কম সময়ে ডাটাবেস আপডেট করতে পারি।



রূপালী ব্যাংক এর বিস্তারিত ইতিহাস

বাংলাদেশ ব্যাংক (জাতীয়করণ) অধ্যাদেশ, ১৯৭২-এর অধীনে প্রতিষ্ঠিত একটি রাষ্ট্রায়ত্ত বাণিজ্যিক ব্যাংক। পূর্ব পাকিস্তানে কার্যরত মুসলিম কমার্শিয়াল ব্যাংক, অস্ট্রেলেশিয়া ব্যাংক এবং স্ট্যান্ডার্ড ব্যাংকের সকল সম্পদ ও দায় নিয়ে রূপালী ব্যাংক প্রতিষ্ঠা করা হয়। ৫০০ মিলিয়ন টাকা অনুমোদিত এবং ১০ মিলিয়ন টাকা পরিশোধিত মূলধন নিয়ে রূপালী ব্যাংক ১৯৭২ সালের মার্চ মাসে ব্যাংকিং কার্যক্রম শুরু করে।

১৯৭৩ সালে ব্যাংকটির পরিশোধিত মূলধন ২০ মিলিয়ন টাকায় উন্নীত করা হয়। পরবর্তীকালে ব্যাংকটির ব্যবসায়িক কার্যক্রম, সম্পদ ও দায়ের পরিমাণ বৃদ্ধির সাথে সামঞ্জস্য রেখে এর অনুমোদিত ও পরিশোধিত মূলধন যথাক্রমে ৭ বিলিয়ন ও ১.২৫ বিলিয়ন টাকায় বৃদ্ধি করা হয়। ১৯৮৬ সালের ১৪ ডিসেম্বর তারিখে ব্যাংকটির শেয়ার মূলধনের অন্তত ৫১% সরকারি মালিকানায় রেখে বাকি অংশ বেসরকারি খাতে ছেড়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।



রূপালী ব্যাংক এর পরিচালনা পদ্ধতি

সরকার কর্তৃক মনোনীত ১৩ সদস্যবিশিষ্ট একটি পরিচালক পর্ষদের ওপর রূপালী ব্যাংকের সার্বিক ব্যবস্থাপনার দায়িত্ব ন্যস্ত। ব্যবস্থাপনা পরিচালক ব্যাংকটির প্রধান নির্বাহী। সারাদেশে ২৬টি আঞ্চলিক অফিসসহ ১০টি বিভাগীয় অফিস রয়েছে। বিভিন্ন হিসাবে আমানত গ্রহণ এবং অর্থনীতির প্রায় প্রতিটি খাতে ঋণ বিতরণ ছাড়াও রূপালী ব্যাংক সারাদেশে এর শাখাসমূহের মাধ্যমে সরকারের রাজস্ব জমা গ্রহণ এবং খাদ্য সংগ্রহ কার্যক্রমে সরকারকে এজেন্সি সেবা প্রদান করে থাকে।



রূপালী ব্যাংকের সেবা সমূহ

বর্তমানে ৪৯২টি শাখার মাধ্যমে ব্যাংকার-কাস্টমার সম্পর্ক সমুন্নত রেখে জনগণ ও সরকারকে অত্র ব্যাংক নিম্নে বর্ণিত উল্লেখযোগ্য সেবাসমূহ প্রদান করে থাকে।

  • জনগণের নিকট থেকে আমানত গ্রহণ।
  • দেশের সাধারণ ব্যবসা বাণিজ্য প্রসার,ক্ষুদ্র,মাঝারী ও বৃহৎ শিল্প খাতে ঋণ প্রদান করা।
  • দেশের আমদানী-রপ্তানী খাতকে উৎসাহিত করা।
  • দেশের কৃষি খাতকে গতিশীল রাখার নিমিত্তে কৃষি ও অন্যান্য গ্রামীণ অবকাঠামো  উন্নয়নখাতে বিভিন্ন ধরণের ঋণ বিশেষ করে ক্ষুদ্রঋণ প্রদান করা।
  • দেশের বিশাল শিক্ষিত ও স্বল্প শিক্ষিত বেকার যুবক শ্রেণীকে আত্মকর্মসংস্থান সৃষ্টির মাধ্যমে প্রতিষ্ঠা লাভের জন্য ঋণদান করা ।
  • SME Loan(Small and Medium Enterprize Loan)প্রদান করা।
  • জনকল্যাণে বিভিন্ন সেবা খাতের বিল সংগ্রহ করে সরকারী কোষাগারে জমা প্রদান করা।
  • ব্যাংকের মাধ্যমে বেসরকারী শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকদের বেতন এবং ছাত্রীদের উপবৃত্তি প্রদান।
  • সামরিক ও বেসামরিক চাকুরিজীবিদের অবসর ভাতা প্রদান করা।
  • লকার সার্ভিস
  • হজ্জ্ব গমনকারীদের হজ্জ্বের টাকা গ্রহণ এবং তাদের সেবা প্রদান করা।
  • বৈদেশিক ও স্থানীয় রেমিট্যান্স দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে স্বল্পতম সময়ে প্রেরণ করা।
  • আগ্রহী বিদেশ গমনকারীদের পাসপোর্টে বৈদেশিক মুদ্রার সংস্থান(এনডোর্সমেন্ট ) করা।

উপরোক্ত সেবা কার্যক্রম প্রদান সহ সার্বিক ব্যাংকিং কর্মকান্ড প্রধান কার্যালয়ের ২২টি বিভাগের মাধ্যমে তদারকি করা হয়। তাছাড়া দ্রুত সিদ্ধান্ত প্রদানের মাধ্যমে সার্বিক ব্যাংকিং কর্মকান্ডকে অধিকতর গতিশীল করার লক্ষ্যে বিধিবদ্ধ অর্পিত ক্ষমতা প্রদানপূর্বক সমগ্র দেশকে ২৫টি অঞ্চলে বিভক্ত করা হয়েছে। এছাড়া পাকিস্তানে অবস্থিত আরিফ হাবিব রূপালী ব্যাংক লিমিটেডে আমাদের (রূপালী ব্যাংকের) ২৯.৫০ কোটি পাক রূপী শেয়ার আছে।



রূপালী ব্যাংক এর একাউন্ট খোলা সংক্রান্ত নিয়মাবলী:

১৮ বছরের ঊর্ধ্বে সুস্থ মস্তিষ্ক সম্পন্ন বাংলদেশের যেকোন নাগরিক ব্যাংকে হিসাব খোলার অধিকারী। এ ব্যাপারে হিসাব খুলতে আগ্রহী ব্যক্তি/প্রতিষ্ঠানের মনোনীত ব্যক্তিকে সরাসরি শাখা ব্যবস্থাপক/শাখার দায়িত্ব প্রাপ্ত কর্মকর্তার সাথে যোগযোগ করতে হবে।

নিম্নে বিভিন্ন ধরণের হিসাব খোলার পদ্ধতি,সেবার সময়,প্রযোজ্য চার্জ উল্লেখ করা হল:

                      হিসাবের প্রকৃতি প্রদেয় সুদের হার(সুদের হার পরিবর্তনশীল)
ক) সঞ্চয়ী হিসাব ৪.৫০%
খ) চলতি হিসাব ০০%
গ) এসএনডি ২.৭৫%
ঘ) মেয়াদী হিসাব
১। ৩মাস এবং তদূর্ধ কিন্তু ৬ মাসের কম ৬.৫০%
২। ৬মাস এবং  তদূর্ধ কিন্তু ১ বছরের কম ৬.৭৫%
৩। ১ বছর এবং  তদূর্ধ কিন্তু ২ বছরের কম ৭.২৫%
৪। ২ বছর এবং তদুর্ধ ৭.৫০%
ঙ) ডিপিএস ১৫%
চ) আরডিপিএস ৮%
ছ) আরডিপিএস-২ ৬.৫০%
জ) ফেস্টিবল ডিপোজিট ০০%
ঝ) কল ডিপোজিট ০০%

 

  • একক/যৌথ/সমিতি/প্রতিষ্ঠানের নামে হিসাব খোলা যায়।
  • হিসাব খোলার জন্য নির্ধারিত ফরমে যথাযথভাবে স্বাক্ষরদান,সত্যায়িত ছবি(গ্রাহক ও মনোনীত ব্যক্তি) ব্যাংকের হিসাবধারী পরিচয়দানকারীর নাম,স্বাক্ষর ও হিসাব নম্বর,অংশীদারী ফার্মের ক্ষেত্রে অংশীদারিত্বের দলিল এবং যৌথ মুলধনী কোম্পানীর ক্ষেত্রে সংঘ স্মারক জমা দিতে হয়।
  • প্রয়োজনীয় আনুষ্ঠানিকতা শেষে হিসাব খোলার জন্য ১৫/৩০ মিনিট এবং টাকা জমা দিতে ১০/১৫ মিনিট সময় ব্যয় হয়।


    রূপালী ব্যাংক এর ঋণ প্রদান সংক্রান্ত

    • কৃষি ঋণ: কৃষি ও পল্লী ঋণের আওতায় মৎস্য প্রকল্প ঋণ,মুরগপ্রিকল্প ঋণ,ডেয়ারী খামার ঋণ,ছাগল পালন প্রকল্প ঋন,আধা নিবিড় ছাগল পালন ঋণ,চিংড়ি চাষ ঋণ,শস্য গুদাম ঋণ প্রকল্প,আর্থ সামাজিক ও দারিদ্র বিমোচন কর্মসূচী ঋণ,প্রতিবন্ধীদের জন্য ক্ষুদ্র ঋণ,ক্ষুদ্র ঋণ।
    • শিল্প ঋণ: বৃহৎ ও মাঝারী শিল্পে মেয়াদী ঋণ,চলতি মুলধন ঋণ,শিল্পে অগ্রাধিকার প্রাপ্ত খাতে প্রকল্প ঋণ(রপ্তানীমুখী শিল্প ব্যতীত),রপ্তানিমুখী শিল্পে প্রকল্প ঋণ(থ্রাস্ট সেক্টর),ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্পে মেয়াদী ঋণ।
    • বাণিজ্যিক ঋণ: আমদানী ও রপ্তানী সংক্রান্ত সকল প্রকার ঋন,সকল ধরণের ব্যবসা বাণিজ্য পরিচালনার জন্য ঋণ।
    • SME লোন : Personal Loan,Prodessional Loan,Small Enterprize Financing,গৃহ সামগ্রী ঋণদান প্রকল্প।
    • অন্যান্য ঋণ : আবাসিক গৃহ নিমার্ন ঋণ,বাণিজ্যিক গৃহ নির্মাণ ঋণ,পাট ব্যবসা ঋন,স্বনির্ভর ও বিশেষ কর্মসূচী ঋণ,পরিবহন ঋণ,হিমাগারে আলু সংরক্ষণ ঋণ(চলতি মুলধন ঋণ),ইটের ভাটা/স্বর্ণালংকারের বিপরীতে ঋণ,ইন্সুরেন্স পলিসি/ডিপি নোট/ওয়েজ আর্নার্স বন্ড ইত্যাদির বিপরীতে ঋণ,শেয়ার/ডিবেঞ্চার বিপরীতে ঋণ,কার্যাদেশের বিপরীতে ঋণ,কনজুমারস ক্রেডিট/ট্রাভেল কারেন্সি ও ডায়াগনস্টিক ব্যবসা ঋণ,মহিলা উদ্যোক্তা অর্থায়ন কর্মসূচী,এফডিআর/ডিপিএস/আরডিপিএস এর বিপরীতে ঋণ।*
    • যেকোন ধরণের ঋণ গ্রহণে অনুসরণীয় পদ্ধতি অর্থাৎ ঋণ গ্রহণ/বিতরণ,ঋণের দলিলায়ন,পরিশোধ সূচী/সময়সীমা,সুদের হার ইত্যাদি বিষয়সমূহ শাখা পর্যায়ে রক্ষিত বুকলেট হতে গ্রাহকগণ জেনে নিতে পারেন। ঋণ বিভাগের সাথে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাগণ স্বল্পতম সময়ে এ সেবা প্রদান করে থাকে।

     



রূপালী ব্যাংক এ রেমিট্যান্স সুবিধা:

(ক) কালেকশন অব চেক/বিলস(লোকাল) (খ) আউট স্টেশন কালেকশন(চেক/বিলস/ডকুমেন্টারী বিল) (গ) ডিডি/টিটি/এমটি ইস্যু (ঘ) পেমেন্ট অর্ডার/সিডিআর ইস্যু (ঙ) ডিডি/টিটি/এমটি/পেমেন্ট অর্ডার/কলডিপোজিট প্রভৃতি বাতিলকরণ (চ) ডুপ্লিকেট ইন্সট্রুমেন্ট ইস্যু (ছ) স্ট্যান্ডিং ইন্সট্রাকশন (জ) অভ্যন্তরীণ চেক/বিল ক্রয় (ঝ) ব্যাংক গ্যারান্টি (অভ্যন্তরীণ)।

  • বড় বড় শাখায় রেমিট্যান্স বিভাগের জন্য একজন কর্মকর্তা থাকেন। ছোট শাখায় সচরাচর ২য় কর্মকর্তা এ দায়িত্ব পালন করেন। গ্রাহকগণ রেমিট্যান্স সংক্রান্ত সেবা গ্রহণ সম্পর্কে উক্ত কর্মকর্তার সাথে যোগাযোগ পূর্বক জেনে নিতে পারবেন।
  • ডিডি,টিটি,এমটি ইস্যুর জন্য গ্রাহক কর্তৃক টাকা জমার পর ১০ মিনিট সময় প্রয়োজন হবে।*
  • রেমিটূান্স সংক্রান্ত উন্নত সেবা প্রদানের জন্য SWIFT(Society for world wide inter bank financial  telecommunicaton),EFT(Electronic Fund Transfer- ই মেইলের সাহায্যে)ইত্যাদি আধুনিক পদ্ধতি ব্যবহার করা হয়।
  • বিদেশী ড্রাফট কোন শাখায় উপস্থাপন করা হলে কালক্ষেপণ না করে সর্বোচ্চ তিন দিনের মধ্যে গ্রাহকের হিসাবে জমা করা হয়।


রূপালী ব্যাংক এ উপবৃত্তির কার্যক্রম:

সংশ্লিষ্ট প্রকল্প হতে প্রাথমিক শিক্ষা,মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক পর্যায়ে ছাত্রীদের উপবৃত্তির অর্থ পাওয়ার পর তা শাখা পর্যায়ে প্রেরণ করা হয়ে থাকে। প্রকল্প কর্তৃক Actss(Award Confirmation and Tuition Subsidy Statement) এর ভিত্তিতে Loose Cheque/Actss এ স্বাক্ষর দান পূর্বক সংশ্লিষ্ট ছাত্রীকে উপবৃত্তি এবং শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে টিউশন ফিট পরিশোধ করা হয়ে থাকে।

 



রূপালী ব্যাংক এ বেসরকারী  শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকদের বেতন প্রদান:

শিক্ষা অধিদপ্তর হতে টাকা পাওয়ার পর উহা সংশ্লিষ্ট আঞ্চলিক কার্যালয়ের মাধ্যমে মাখা পর্যায়ে প্রেরণ করা হয়। স্কুলের সংশ্লিষ্ট প্রতিনিধির অনুমোদনের পর দাখিলকৃত বিলের মাধ্যমে বেসরকারী শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকদের বেতন ভাতাদি পরিশোধ করা হয়ে থাকে। উভয় ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট প্রতিনিধির অনুমোদনের পর দাখিলকৃত বিলের মাধ্যমে বেসরকারী শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকদের বেতন ভাতাদি পরিশোধ করা হয়ে থাকে। উভয় ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট আঞ্চলিক কার্যালয় হতে নিবিড় পর্যবেক্ষণ করা হয়ে থাকে।



রূপালী ব্যাংক এ পেনশন এর অর্থ প্রদান:

পেনশনভোগীদের পাশবুকের ভিত্তিতে মুলতবী হিসাব হতে নির্ধারিত পেনশন পারশোধ করা হয়ে থাকে। তারপর পরিশোধকৃত অর্থের পেনশনের বিবরণী বাংলাদেশ ব্যাংকে Reimbursement এর জন্য প্রেরণ করে উহা আদায়পূর্বক মুলতবি হিসাব সমন্বয় করা হয়ে থাকে।



রূপালী ব্যাংক গ্রাহকদের অভিযোগের বিষয়ে যোগাযোগ:

গ্রাহকদের অভিযোগের বিষয়ে আমাদের ব্যাংকের কমপক্ষে ২টি শাখায় আপাতত ডিজিটাল স্ক্রল ডিসপ্লে মেশিন এবং ডিজিটাল সাইনেজ মেশিন স্থাপন করা হবে। অন্যান্য শাখাসমূহে ব্যাংক প্রদত্ত সেবা সমূহের বিষয়ে কোন তথ্য জানার জন্য বা যেকোন সমস্যা/অভিযোগের জন্য সম্মানিত গ্রাহকগণকে প্রথম সেবা প্রদানকারী বা ফোকাল পয়েন্ট হিসেবে মনোনীত কর্মকর্তার সাথে যোগযোগ করতে হবে।তিনি সকল গ্রাহককে সেবা গ্রহণ বিষয়ে গাইড করবেন। এক্ষেত্রে শাখা ব্যবস্থাপক কর্তৃক মনোনীত কর্মকর্তা প্রথম সেবা প্রদানকারী ফোকাল পয়েন্ট হিসেবে গণ্য হবে। প্রতিটি শাখায় গ্রাহকের অভিযোগ দাখিলের জন্য অভিযোগ বাক্স রয়েছে। গ্রাহকগণ উক্ত অভিযোগ বাক্সে অভিযোগ দাখিল করতে পারবেন্ সংশ্লিষ্ট মনোনীত ব্যক্তি দ্রুত/স্বল্পতম সময়ে গ্রাহকের সমস্যা/অভিযোগ নিষ্পত্তির চেষ্টা করবেন। তিনি নিষ্পত্তিতে ব্যর্থ হলে গ্রাহকগণ প্রধান কার্যালয়ের নিম্নবর্ণিত ফোকাল কর্মকর্তার নিকট অভিযোগ করবেন।

উপ-মহাব্যবস্থাপক
সাধারণ ব্যাংকিং বিভাগ
রূপালী ব্যাংক লিঃ
প্রধান কার্যালয়
৩৪,দিলকুশা বাণিজ্যিক এলাকা,ঢাকা।

উপ-মহাব্যবস্থাপক
সাধারণ ঋণ বিভাগ
রূপালী ব্যাংক লিঃ
প্রধান কার্যালয়
৩৪,দিলকুশা বাণিজ্যিক এলাকা,ঢাকা
উপ-মহাব্যবস্থাপক
শিল্প ঋণ বিভাগ-১
রূপালী ব্যাংক লিঃ
প্রধান কার্যালয়
৩৪,দিলকুশা বাণিজ্যিক এলাকা,ঢাকা

উপ-মহাব্যবস্থাপক
নিরীক্ষা ও পরিদর্শন বিভাগ
রূপালী ব্যাংক লিঃ
প্রধান কার্যালয়
৩৪,দিলকুশা বাণিজ্যিক এলাকা,ঢাকা ।

এছাড়া সার্বিক সমস্যা/অভিযোগ নিরসনকল্পে প্রধান কার্যালয়ে একজন মুখ্য ফোকাল কর্মকর্তা থাকবেন। রূপালি ব্যাংকের মুখ্য ফোকাল কর্মকর্তার ঠিকানা নিন্মরূপ:

মুখ্য ফোকাল কর্মকর্তা
উপ-মহাব্যবস্থাপনা পরিচালক
রূপালী ব্যাংক লিঃ
প্রধান কার্যালয়
৩৪,দিলকুশা বাণিজ্যিক এলাকা,ঢাকা।
ফোন-৯৫৫২৩০১
ফ্যাক্স্ নং- ৮৮০-২-৯৫৬৪১৪৮



রূপালী ব্যাংক এর ডিসপ্লে বোর্ড সংরক্ষণ:

প্রধান কার্যালয়/আঞ্চলিক কার্যালয়/কর্পোরেট শাখা/শাখাসমূহে ডিসপ্লে বোর্ডে নিম্নোক্ত তথ্যাদি থাকবেঃ

  • সিটিজেন চার্টার পুস্তিকা প্রাপ্তির তথ্য এবং প্রতিষ্ঠানের প্রধান প্রধান কার্যাবলীর তালিকা সহ নিম্নোক্ত তথ্য/তথ্যাদি থাকবে
  • ব্যাংকের লেনদেনের সময়সূচী
  • বিভিন্ন ডিপোজিট স্কীমের সুদের হার
  • ড্রাফট ও পে অর্ডারের সার্ভিস চার্জ
  • অগ্রিমের সুদের হার

গ্রাহকদেরকে উত্তম সেবা যথাযথভাবে প্রদানের নিমিত্তে নিম্নোক্ত কার্যাবলী অবশ্য করণীয়ঃ

  • লেনদেনের নির্ধারিত সময়সূচীর মধ্যে ব্যাংকে প্রবেশকারী গ্রাহককে সেবা প্রদান করতে হবে। প্রয়োজনে সময় শেষ হওয়ার পরও এসকল গ্রাহককে সেবা দিতে হবে।
  • সকল গ্রাহকের সাথে অবশ্যই মার্জিত আচরণ করতে হবে।
  • শাখাসমূহে পরিস্কার পরিচ্ছণ্ণতা ও স্বাস্থ্যসম্মত পরিবেশ নিশ্চিত করতে হবে।


রূপালী ব্যাংক এর গ্রাহকের দায়দায়িত্ব:

ব্যাংকার-কাস্টমার সম্পর্ক রক্ষার্থে গ্রাহকবৃন্দেরও নিম্নোক্ত দায়দায়িত্ব পালন করা বাঞ্ছনীয়:

  • চেক বহি ও পাশ বহি নিজ দায়িত্বে সংরক্ষণ করতে হবে
  • চেক ইস্যুর সময় ব্যাংক কর্তৃক নির্ধারিত সর্বনিম্ন ব্যালেন্স রাখা আবশ্যক ।
  • ব্যালেন্সের অতিরিক্ত চেক ইস্যু পরিহার করতে হবে।
  • গ্রাহকের লেনদেন পরিশোধের জন্য যতদূর সম্ভব ক্রসড/একাউন্ট পেয়ী চেক প্রদান করতে হবে।
  • চেক প্রদানের সময় তারিখ,টাকার পরিমাণ কথায় ও অংকে,ক্রসিং ইত্যাদির বিষয়ে সতর্ক থাকতে হবে।এছাড়া গ্রাহককে অন্যান্য সতর্কতামূলক ব্যবস্থা গ্রহণেও অভ্যস্থ হতে হবে।


 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here